একটানা দীর্ঘক্ষণ বসে কিংবা শুয়ে ফেসবুকিং বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং নয়

0
16

ডাঃ এম. ইয়াছিন আলী

আমাদের দৈনন্দিন প্র্যাকটিস কিছু তরুণ-তরুণীদের পাচ্ছি যারা ঘাড় ও কোমর ব্যথা নিয়ে আমাদের শরণাপন্ন হচ্ছেন। যাদের বেশিরভাগেরই বয়স ১৮ থেকে ৩০-এর এর মধ্যে, এদের উপসর্গ হলো-ঘাড়ে ব্যাথা, ব্যথার কারণে ঘাড় ঘোরাতে পারেন না। এমন কি ব্যথা থেকে পিঠের উপরের অংশ ও কারও কারও হাত পর্যন্ত ছড়িয়ে যায়, কিছু ক্ষেত্রে হাত ঝিন ঝিন বা অবশ অবশ অনুভূত হয় এবং বেশীক্ষণ যাবৎ কোন কিছু ধরে রাখলে আর রাখতে পারেন না। অর্থাৎ হাতে শক্তি কম পাচ্ছেন। আর যারা কোমরে ব্যথার উপসর্গ নিয়ে আসেন তাদের বেশীরভাগই অভিযোগ করেন দীর্ঘক্ষণ বসে থাকার পর উঠতে গেলে সহজে উঠতে পারেন না, কোমরে মাংসপেশী টেনে ধরেন। তার পর খানিকক্ষণ বাকা হয়ে থেকে তারপর ধীরে ধীরে সোজা হতে পরেন। তাছাড়া মাঝে মাঝে কিচু রোগীর বক্তব্য এমন যে, দীর্ঘক্ষণ উপর হয়ে শুয়ে ল্যাপটপ কিংবা মোবাইলে ফেসবুকিং বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করছিলেন কিন্তু উঠার সময় আর বিছানা থেকে উঠতে পারছেন না, তীব্র ব্যাথা অনুভূত এই সমস্যাগুলি তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে।

আসুন জেনে নিই এই সমস্যাগুলির কারণ কি?
এই সমস্যাগুলির কারণ শুধুমাত্রই একটু অসচেতনতা, অসতর্কতা বা অসাবধানতা।
যেমন-রবিন এস.এস.সি পরীক্ষা দেওয়ার পর রেজাল্টের অপেক্ষায় আছেন। এই সময় তার নির্দিষ্ট কোন লেখাপড়া নেই তাই দিনের বেশীরভাগ সময়ই কম্পিউটার এর সামনে কখনও ফেইসবুকিং কখনও ইন্টারনেট ব্রাউজিং কখনো কম্পিউটার গেম একটানা সকাল ১০টা থেকে রাত দুইটা পর্যন্ত। ফাঁকে ফাঁকে নাস্তা তাও কম্পিউটারের সামনে বসেই। তেমনি ভাবে জেরিন এবার একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.বি.এ কমপ্লিট করেছেন। এখন ক্লাসে যেতে হয় না। হাতে অফুরন্ত সময় অন্যান্য বন্ধুরা যার যার কাজে ব্যস্ত, তেমন বাইরে যাওয়া হয় না। তাই ইন্টারনেটই তার সঙ্গী সকালে ঘুম উঠে নাস্তার পর থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত ল্যাপটপ নিয়ে বিছানায় শুয়ে ছাত্রী জীবনের শুরু থেকেই তার বিছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে সামনে বই রেখে পড়ার অভ্যাস। তাই রুমে পড়ার টেবিল শুধুমাত্র বই রাখার সেলফ হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে তারই সূত্র ধরে এখন বই এর পরিবর্তে ল্যাপটপ।

উপরে আলোচিত রবিন ও জেরিন দুই জনের একজন ঘাড় ও অন্যজন কোমর ব্যথায় আক্রান্ত। কিন্তু তাদের এই ব্যাথার জন্য কোন প্যাথলজিক্যাল কোন কারণ নেই। কারণ শুধুমাত্র একটু অসচেতনতা। যার ফলে রবিনের ঘাড়ের মাংসপেশী গুলো স্ফীফ বা শক্ত ও দুর্বল হয়ে এবং জেরিনের একই ভাবে কোমরের মাংসপেশীগুলোরও একই অবস্থা যার ফলে উভয়েই এই তরুণ বয়সে ঘাড় ও কোমর ব্যথায় আক্রান্ত। কিন্তু তাদের তো জানা নেই যে এভাবে দীর্ঘক্ষণ বসে কিংবা শুয়ে ফেসবুকিং বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করলে এই ধরনের সমস্যা হতে পারে এমনকি কেউ তাদেরকে সাবধান করেননি।
একটু সচেতনতা ও সাবধানতাই এই ধরনের সমস্যাগুলি থেকে পরিত্রাণ দিতে পারে।
যেমন-
১। একটানা ১ ঘন্টার বেশী সময় বসে কিংবা শুয়ে কম্পিউটিং বা বাউজিং করবেন না। প্রয়োজন হলে ১ ঘন্টার পর পর ১০-১৫ মিনিট বিশ্রাম নিন বা হাঁটা হাটি করুন। তারপর আবার বসুন।

২। দীর্ঘক্ষণ উপুড় হয়ে শুয়ে বই পড়বেন না কিংবা ল্যাপটপ চালাবেন না।

৩। কম্পিউটিং করার সময় কম্পিউটারের মনিটর চোখের লেভেল রাখুন, যাতে আপনাকে সামনের দিকে ঝুঁকতে না হয়।

৪। বসার চেয়ার ও টেবিল এর উচ্চতা এমন হতে হবে যেন আপনি সোজা হয়ে কোমরের পিছনে সার্পোট অবস্থায় বসে কম্পিউটার চালাতে পারেন।

৫। নিয়মিত ঘাড় ও কোমরের মাংসপেশির শক্তি বজায় রাখার জন্য বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যায়াম করুন।

সর্বোপরি একটু নিয়ম মেনে চলুন সুস্থ ও ব্যথামুক্ত জীবন-যাপন করুন।

লেখক :
চেয়ারম্যান ও চীফ কনসালটেন্ট – ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসপতাল
বাড়ি -১২/১, রোড ৪/এ, ধানমন্ডি, ঢাকা । ০১৭৮৭ ১০৬৭০২