জয়েন্টে ব্যথা হলে

0
30

হিপ জয়েন্ট, নি জয়েন্ট ও শোল্ডার জয়েন্টেই দেহের সমগ্র ওজন গিয়ে পড়ে। তাই জয়েন্টগুলোর রণাবেক্ষণ এবং এর স্বাস্থ্যকর দিকটির প্রতি সবার যতœবান হওয়া উচিত। যাতে করে দেহের ভার বহন করার ক্ষমতা তাদের থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, মানবদেহের জয়েন্টগুলো গাড়ির টায়ারের মতো। এটা আজীবন সচল থাকবে এমনটা তো নয়। আবার এটাকে বদল করাও যাবে না। জয়েন্ট যাতে সচল ও স্বাস্থ্যবান থাকে সে দিকেই তাই সবার খেয়াল রাখতে হবে। এ জন্য নিয়মিত ও পরিমিত ব্যায়াম করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যেমন সুইমিং, সাইকিং, জগিং এবং ইয়োগা বা যোগা ব্যায়াম। এতে জয়েন্ট ভালো থাকবে, জয়েন্টে ব্যথা হবে না এবং ব্যথা হলেও তা সেরে যাবে। ব্যায়াম করলে জয়েন্টের মবিলিটি ও ফেক্সিবিলিটি বা সম্প্রসারণ-প্রসারণক্ষমতা ভালো থাকে। ব্যায়ামে পেশির শক্তিও বাড়ে। যাদের জয়েন্টে ব্যথা আছে তাদের নিয়মিত হালকাভাবে ইয়োগা বা যোগা ব্যায়াম, সুইমিং, সাইকিং বা জগিং কারার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। ব্যায়াম করলে ওসব স্থানের ব্যথা ধীরে ধীরে কমে যাবে। ব্যায়াম করার পরও যদি হিপ জয়েন্ট, নি জয়েন্ট ও শোল্ডার জয়েন্টে ক্রমাগত ব্যথা থেকেই যায় তা হলে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। সেই সাথে নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে দেহের ওজনও। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন, জয়েন্টে ব্যথার জন্য নিজে নিজে অ্যান্টি ইনফামেটরি ওষুধ অতিমাত্রায় সেবন না করাই ভালো।