প্লাস্টিকে বিষ

0
12

ক্যানসারের বাড়বাড়ন্ত, হরমোনের সমস্যা, বাচ্চার মানসিক বিকাশে বাধা – হতেই পারে এর জন্য দায়ী প্লাস্টিক৷ জলের বোতল, কনটেনারে মাত্রাতিরিক্ত বিপিএ কীভাবে রোগ ছড়াচ্ছে মানব শরীরে l

লেখাটা পড়তে পড়তে আশপাশে দেখে নিন৷ দেখবেন একটা প্লাস্টিকের বোতল-কাপ, বাড়িতে বাচ্চা থাকলে তার ফিডিং বোতল, খেলনা, ফ্রিজে কোল্ড ড্রিঙ্কের বোতল, প্লাস্টিকের খাবারের পাত্র, মাইক্রোওভেনে গরম করার ‘হিট প্রুফ’ কণ্টেনার কিছু না কিছু আছেই৷
বাড়িতে ওয়াটার পিউরিফায়ার বসিয়ে অথবা প্লাস্টিকের ফিডিং বোতল গরম জলে ফুটিয়ে নিয়ে আপনি নিশ্চিন্ত৷ কিন্তু এসবের পরেও কি আপনি সুরক্ষিত? নিঃশব্দে আমাদের সকলের জীবনে জায়গা করে নিয়েছে বিপিএ অথবা বিসফেনল এ (Bysphenol A)৷
বিসফেনল এ কী?
নিঃশব্দে আমাদের জীবনে জায়গা করে নিয়েছে বিসফেনল এ৷ প্লাস্টিকের পাত্র, বোতল, খেলনা তৈরিতে ব্যবহার হয় পলিকার্বোনেট প্লাস্টিক৷ ফুড ক্যান, ধাতব পাত্র, বোতলের মুখ, জল সরবরাহের লাইনের জন্য লাগে এপোক্সি রেজিন৷ প্লাস্টিকের পাত্র শক্ত করার জন্য গত চার দশকেরও বেশি সময় ধরে এই দুই উপাদানে ‘বিসফেনল এ’ ব্যবহার করা হয়৷ আমরা মনে করি, রিসাইকেল করা যায় এরকম প্লাস্টিক সুরক্ষিত৷ কিন্তু তা নয়৷ শুধু প্লাস্টিকের পাত্র নয়, সিডি, চশমা, চিকিৎসার সরঞ্জাম, দাঁত সিল করার উপাদানেও ব্যবহার করা হয় এটি৷
কীভাবে শরীরে মেশে বিসফেনল এ?
দীর্ঘদিন ধরে প্লাস্টিকের পাত্রে খাদ্য, পানীয় ইত্যাদি খাওয়া ও পান করার ফলে ‘বিসফেনল এ’ জৈব রাসায়নিকটি খাদ্য ও তরলে মাইগ্রেট করে এবং শরীরে প্রবেশ করতে থাকে৷ শরীরে নানা রোগের লক্ষণ দেখা দেয়৷ এটি সিন্থেটিক ইস্ট্রোজেন যা শরীরে প্রাকৃতিক ইস্ট্রোজেনের মতোই প্রবেশ করে এবং হরমোনগত ভাবে নানা পরিবর্তন আনে যা মানবদেহের পক্ষে ক্ষতিকর৷ কিন্তু মনে রাখতে হবে এই ক্ষতি তখনই হয় যখন নির্ধারিত মাত্রার অতিরিক্ত বিপিএ দৈনিক শরীরে প্রবেশ করে৷
নির্ধারিত মাত্রা
শোনা যায়, এ বছর মার্কিন প্রেসিডেণ্ট ভারতে আসার সময় পানীয় জল উড়িয়ে এনেছিলেন নিজের দেশ থেকে৷ কেন? ন্যাশনাল টেস্ট হাউস সূত্রের দাবি, আমাদের দেশে এই মাত্রা পরীক্ষা করার যন্ত্র নেই৷ যন্ত্রের দাম কয়েক কোটি৷ ২০১৪ সালে নির্ধারিত মাত্রা অনুযায়ী ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন প্লাস্টিক পাত্রে বিপিএ মাত্রা নির্ধারিত করেছিল ০.৬ পার্টস প্রতি বিলিয়ন (PPB)৷ ২০১৪ সালের নির্ধারিত মাত্রা অনুযায়ী ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন প্লাস্টিক পাত্রে বিপিএ মাত্রা (টলারেবল ডেইলি ইনটেক) নির্ধারিত করেছিল ০.৬ পার্টস প্রতি বিলিয়ন (PPB)৷
ইউরোপিয়ান ফুড সেফটি অথরিটির মতে, সুরক্ষিত মাত্রার মধ্যে বিপিএ শরীরে প্রবেশ করলে কোনও ক্ষতি হয় না৷ তবে মনে রাখা জরুরি, ইউরোপিয়ান ফুড সেফটি অথরিটির পূর্ব নির্ধারিত বিপিএ মাত্রা ছিল প্রতিদিন সংশ্লিষ্ট মানবদেহের সর্বমোট ওজনে প্রতি কিলোগ্রামে ৫০ মাইক্রোগ্রাম (মাইক্রোগ্রাম/দেহের ওজনের প্রতি কিলোগ্রাম/প্রতিদিন)৷ কিন্তু বর্তমানে তা ৫০ মাইক্রোগ্রাম থেকে কমে হয়েছে ৪ মাইক্রোগ্রাম৷ এই সচেতনতার ফলে পৃথিবীর বহু দেশে নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছে বিপিএ৷
বিপিএ-এর ক্ষতিকর প্রভাব 
বিপিএ প্রজননের ক্ষমতা নষ্ট করে৷ ডিম্বাণুর বৃদ্ধিতে বাধা দেয়৷
হিউম্যান রিপ্রোডাকশন নামে এক জার্নাল জানিয়েছে, অতিরিক্ত মাত্রায় বিপিএ দীর্ঘদিন ধরে শরীরে প্রবেশ করলে পুরুষদের মধ্যে ইরেক্টাইল সমস্যা, যৌন চাহিদায় খামতি, বীর্যস্খলনের সমস্যা, সেক্স হরমোনে পরিবর্তন দেখা দিতে পারে৷
বিপিএ মহিলাদের মধ্যে হার্টের অসুখের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়৷
ইংল্যান্ডের এক পরীক্ষায় জানা গিয়েছে, বিপিএ টাইপ ২ ডায়াবিটিস, কার্ডিওভাসকুলার অসুখ এবং লিভার এনজাইম পরিবর্তনের সঙ্গে যুক্ত৷
অতিরিক্ত মাত্রায় বিপিএ প্রতিদিন শরীরে প্রবেশ করলে মস্তিষ্কের কাজে ক্ষতি করে৷ এছাড়াও স্মৃতি ও কোনও কিছু শেখা সংক্রান্ত মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা নষ্ট করতে পারে৷ হতাশার সৃষ্টি করতে পারে৷
বিপিএ-এর অতিরিক্ত মাত্রা আইভিএফ-এর মতো অত্যাধুনিক চিকিত্সা ক্ষেত্রেও মহিলাদের ডিম্বাণুর গুণগত মান নষ্ট করে দিতে পারে৷
বিপিএ-এর দীর্ঘদিনের ব্যবহার কারসিনোজেন কোষ বৃরি সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়৷ এটি কেমোথেরাপির প্রভাব কমিয়ে দিতেও পারে৷
গর্ভস্থ শিশু যদি কন্যা হয় তাহলে ভবিষ্যতে তার স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে৷
হাঁপানির সমস্যা বাড়ে৷
শিশুদের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের প্রভাবে শরীরের হরমোনে নানা ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তার করে৷
কোথায় দাঁড়িয়ে আমরা
২০১৪ সালে দিল্লির টক্সিকস লিংক নামে এক এনজিও বেশ কিছু ফিডিং বোতলের নমুনা বিপিএ পরীক্ষার জন্য পাঠায়৷ সেই পরীক্ষায় জানা যায় যে, বাজারে পাওয়া যায় এমন সকল ব্র্যান্ডের ফিডিং বোতলে বিসফেনল-এ আছে৷ প্রতিটি নমুনায় গড়ে ১.৬৮ পার্ট প্রতি মিলিয়ন বিপিএ পাওয়া গিয়েছে যেখানে ইউরোপিয়ান  ইউনিয়নের নির্ধারিত মাত্রা ছিল ০.৬ পার্ট প্রতি মিলিয়ন৷ সর্বাধিক মাত্রা ছিল ৯.৮ পিপিএম৷ অনেক দেশ বিপিএ সম্পর্কে কঠোর পদক্ষেপ নিলেও দুর্ভাগ্যজনকভাবে ভারতে সেরকম কোনও আশানুরূপ উদ্যোগ লক্ষ করা যায়নি৷ ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস এখনও তাদের পরিমার্জিত বিপিএ-এর নির্ধারিত মাত্রা সংক্রান্ত কোনও নথি প্রকাশ করেনি৷ টক্সিকস লিংক-এর এই রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পরে সরকারিভাবে একটি খসড়া তৈরি হলেও অনুমোদন এখনও পায়নি৷ যদিও ন্যাশনাল টেস্ট হাউস সূত্রে জানানো হচ্ছে যে, সরকারিভাবে ধীরে ধীরে হলেও নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রচেষ্টা করা হচেছ৷
আপনি কী করতে পারেন?
সরকারিভাবে আমাদের দেশে বিপিএ নিষিদ্ধ নয়৷ ফলে এর ব্যবহার হয়তো যথেচ্ছ৷ নমুনা পরীক্ষার সংখ্যাও যথেষ্ট কম৷ সে ক্ষেত্রে আপনি সরাসরি কোনও প্লাস্টিক পাত্র বা বোতল নিয়ে সরকারি পরীক্ষাগারে নির্ধারিত নিয়ম মেনে নমুনা পরীক্ষা করার জন্য জমা দিতে পারেন৷ সচেতনতা বাড়ানোই এই মুহূর্তে প্রধান উদ্দেশ্য৷
জেনে রাখুন 
প্লাস্টিক পাত্র, বোতলের গায়ে অথবা তলায় নানা লোগো আঁকা থাকে৷ তিনটে তিরচিহ্নের মধ্যে থাকা সংখ্যা বুঝিয়ে দেয় বোতলে উপস্থিত উপাদানের কথা৷ সেগুলি প্রসেস করে পুনরায় ব্যবহার করা যায়৷ কিন্তু রিসাইকেল করা যায় এর মানে কি আমরা সুরক্ষিত? নিম্নলিখিত প্রত্যেক ক্ষেত্রেই বিপিএ এবং ফ্যালেট বিভিন্ন মাত্রায় ব্যবহার করা হয়৷