বাত সমাচার



  • Add Comments
  • Print
  • Add to Favorites

“বাতের ব্যাথা” কথাটা প্রায়ই শোনা যায় একটু বৃদ্ধ লোকদের মুখে ৷ তাদের এমন একটা ধারনা যে, বাতের কোন চিকিৎসা নাই ৷ এই ব্যাথা সহ্য করেই জীবন পার করতে হবে ৷ অনেকের বাহুতে দেখা যায় বাতের চেইন (চুম্বকের ব্রেসলেট) ৷ তাদের বিশ্বাস এই ব্রেসলেট পড়লে বাতের ব্যথা হয় না ৷ তবে এতে বাত থেকে মুক্তি পায় কয়জন কে জানে ৷ তবে প্রচলনটা এখন কম, আগে অনেক বেশি ছিল ৷ তাহলে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান কি বাতের কাছে পরাজিত? সত্যিই কি বাতের কোন চিকিৎসা নাই? মোটেই তা নয়, আসলে বিষয়টা জানতে হলে আগে বুঝতে হবে বাত কি কিংবা আমরা কাকে বাত বলছি? বিষেশ কিছু রোগ যাতে মাংশপেশী এবং জয়েন্টে ব্যাথা বা অসস্তি বোধ হয় তাকেই বাত বলে ৷ যেমন – রিউমাটয়েড আথ্রাইটিস, স্কেলোরোডার্মা, লুপাস, গাউট, এরিটাইটিস, ফাইব্রোমায়েলগিয়া, টেনোসাইনোভাইটিস ইত্যাদি ৷ আবার শিশুদেরও বাত হতে পারে যেমন- জুভিনাইল ইডিওপ্যাথিক আথ্রাইটিস, বাতজ্বর ইত্যাদি ৷

ঘটনা – ১: রফিক উদ্দীনের বেশ কিছুদিন ধরে ঘারে ব্যাথা ৷ আজকাল ব্যথা হাতের দিকেও নামে ৷ মাঝে মধ্যে খুব অসস্তি ভাব বা হাতের মধ্যে চিবায় ৷ দোকান থেকে ব্যাথার ওষুধ কিনে খায় ৷ তাতে লাভ হয়নি তেমন ৷ পরে উপজেলায় যায় ডাক্তার দেখাতে ৷ ডাক্তার এক্সরে এবং পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ওষুধ দেন ৷ ওষুধ খাওয়ার পর ব্যাথা কমে, কিন্তু ওষুধ বন্ধ করলেই শুরু হয় আবার ব্যাথা ৷ কিছুদিন পর আবার ডাক্তারের কাছে গিয়ে ওষুধ পরিবর্তন করে আনেন ৷ তাতেও লাভ হয়না, ফলাফল সেই একই ৷ তিনি ধরে নেন এটা তার বাতের ব্যাথা, এই ব্যাথা নিয়েই বাচতে হবে তাকে ৷ ব্যাথা কখোনো বাড়ে আবার কখোনো কমে, এভাবেই ব্যাথাকে সঙ্গে নিয়ে কাটে তার জীবন ৷

ঘটনা – ২: রাশিদা বেগম একজন গৃহিণী, বয়স ৩২ বছর ৷ কিছুদিন ধরে সারা শরীরের জয়েন্টে জয়েন্টে ব্যাথা তার ৷ সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্যাথা বেশি অনুভব হয়, বেলা বাড়ার সাথে সাথে ব্যাথা কমে ৷ প্রায় দেড় মাস ধরে দুই হাতের আঙ্গুলের কিছু জয়েন্ট ফুলে আছে এবং ব্যাথাও আছে ৷ সকল কাজের প্রতি কেমন যেন একটা অনীহা অনুভব করেন তিনি ৷ কিছু হতাশাও আক্রান্ত করেছে তাকে ৷ রাশিদা বেগম ডাক্তারের কাছে গেলে ডাক্তার তাকে বললেন, “আপনার রিউমাটয়েড আথ্রাইটিস হয়েছে ৷”

ঘটনা – ৩: আব্বাস আলী(ছদ্মনাম), কৃষি কাজ করেন, বয়স ৪৭ বছর ৷ ওনার কিছুদিন ধরে বাটকে(buttock) ব্যাথা ৷ তার কিছুদিন পর পায়ের দিকে হালকা ব্যাথা নামে ৷ হাটাচলা করলে ব্যাথা বাড়ে ৷ দোকান থেকে ব্যাথার ওষুধ কিনে খান ৷ ওষুধ খেলে ব্যাথা কমে, ওষুধ বন্ধ করলে আবার একই অবস্থা ৷ ওষুধ বন্ধ করে ব্যাথা সহ্য করেই চালিয়ে যান কাজকর্ম ৷ কিন্তু এভাবেও তিনি কাটাতে পারেননি বেশিদিন ৷ হঠাত শুরু হলো প্রচন্ড ব্যাথা ৷ সহ্য করতে না পেরে গেলেন জেলা সদর হাসপাতলে ৷ সেখানে এক্সরে দেখে ওষুধ দিয়ে দিলেন ডাক্তার ৷ এতেও একই অবস্থা, ওষুধ খেলে ব্যাথা কিছুটা কমে, আবার ওষুধ বন্ধ করলে আগের অবস্থা ৷ আবারো যান ডাক্তারের কাছে, ডাক্তার বলেন “বাতের ব্যাথা এটি, ওষুধ চালিয়ে যান ৷” ব্যাথা নিয়েই কাটতে থাকলো আব্বাস আলীর জীবন ৷ সেও বাতের ব্যাথা হিসাবে এটিকে মেনে নিয়ে বেচে থাকার মানুসিকতা তৈরি করেন ৷ অবশ্য এখন ব্যাথার তীব্রতা এখন আর আগের মতন নাই, পায়ে অবস ভাব টের পান তিনি ৷ কিন্তু না, তার বিপদ এতেও সীমাবদ্ধ থাকলো না ৷ রমজানের শেষ রাত, স্ত্রী ডাকলেন সেহেরী খাওয়ার জন্য ৷ আব্বাস আলীর ঘুম ভাঙ্গলো, কিন্তু তিনি বিছানা ছেড়ে উঠতে পারলেন না ৷ দেখলেন তার পা দুটো একেবারে অবস হয়ে আছে, বল পাচ্ছেন না মোটেও, পায়খানা প্রসাবও নিয়ন্ত্রণে নাই ৷ তাকে দ্রুত বরিশালের একটা ক্লিনিকে নেওয়া হয় ৷ এমআরআই করা হলো তার ৷ ডাক্তার তাকে বললেন আপনার PLID হয়েছে, অপারেশন করতে হবে ৷ তিনি অপারেশন করিয়ে নেন ৷

মেরুদন্ডের বিভিন্ন সমস্যার কারনে ঘাড়ে ও কোমরে ব্যাথা হতে পারে যেটা হাতে এবং পায়ে নামতে পারে যেমন – বাত রোগ সমূহ, টিউমার, মেরুদন্ডের যক্ষা, আঘাত পাওয়া, ম্যাকানিক্যাল প্রবলেম, ডিক্সের সমস্যা ইত্যাদি ৷ উপরের ঘটনা গুলোর মধ্যে একমাত্র রাশিদা বেগমেরই বাত রোগ হয়েছে ৷ আর অন্য দুজনের ম্যাকানিক্যাল পেইন ৷ মেরুদন্ডের গঠনগত কোন পরিবর্তনের কারনে যদি ব্যাথা হয় তাহলে তাকে ম্যাকানিক্যাল পেইন বলে ৷ ম্যাকানিক্যাল প্রবলেম যদি খুব সিরিয়াস পর্যায়ে পৌছায় তাহলে রোগীর অপারেশন করার প্রয়োজন হয় ৷ অন্যথায় ম্যাকানিক্যাল প্রবলেমের একমাত্র চিকিৎসা হলো ফিজিওথেরাপি ৷ উদাহরণ স্বরুপ একজন PLID রোগীর যদি পায়খানা প্রস্রাবের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যায় কিংবা পা প্যারালাইসিস হয়ে যায় তাহলে তার জন্য অপারেশন প্রযোজ্য ৷ অন্যথায় ফিজিওথেরাপি সিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে সম্পূর্ণ সুস্থ করা যায় ৷ আর বাত সহ উল্লেখিত রোগসমূহের ক্ষেত্রে অন্যান্য সিকিৎসার পাশাপাশি ফিজিওথেরাপি সিকিৎসা রোগীকে সচল রাখে, চিকিৎসাকালীন সময়ে ব্যাথা মুক্ত রাখে, দ্রুত ও পুরোপুরি নিরাময় করে এবং পুনর্বাসনে সহায়তা করে ৷

আসলে বাত কোন একটা রোগ নয় ৷ বাত চিকিৎসা বিজ্ঞানের একটা শাখা (Rheumatology) ৷ প্রায় শত রকমেরও বেশি বাত রোগ আছে ৷ প্রত্যেক রোগের চিকিৎসাও আছে ৷ ভালো হচ্ছে না এমন ব্যাথাকে বাত বলে এ ধারনা থেকে বেড়িয়ে আসুন ৷ একজন রোগী হিসাবে আপনি বাতের কথা ভূলে যান ৷ কোন ডাক্তার যদি বলেন, “আপনার বাতের ব্যাথা” তাহলে আপনি তাঁর কাছ থেকে রোগটি জেনে নিন ৷ দোকান থেকে ইচ্ছা মতো ওষুধ কিনে খাওয়া থেকে বিরত থাকুন ৷ কোন ব্যাথাকেই অবহেলা করবেন না, দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন ৷ মনে রাখবেন, ব্যাথা অনুভব করার পর যতো দ্রুত আপনি চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন, আপনি ততো সহজে আরোগ্য লাভ করবেন ৷

ডা:শেখ মুমিনুল্লাহ,পিটি




No Comments to “বাত সমাচার”

Comments are closed.