বিপিএ নির্বাচন

0
43

এবারের বিপিএ নির্বাচনে যারা প্রতিদন্ধিতা করবেন এবং যারা ভোট দিবেন। দুইজনের জন্যই একটু সমস্যা। সমস্যাটা হল আর্থিক।

নমিনেশন ফ্রি, প্রেসিডেন্ট ২০ হাজার, ভাইন্স প্রেসিডেন্ট থেকে সেক্রেটারি ১৫ হাজার টাকা, বাকিদের জন্য ১০ হাজার টাকা।

বিপিএ হল প্রফেশনের উন্নয়নের জন্য একটা অলাভজনক সংগঠন। সেখানে কেন আমাকে এত টাকা দিয়ে নমিনেশন ফরম কিনতে হবে? আমি কি আমার চাকরির ২০ হাজার টাকা বেতন দিয়ে ফিজিওথেরাপির নেতা হব ! তারপর প্রফেশনের উন্নতি!!!!! কিভাবে সম্ভব আমি কি ওখানে ব্যবসা করব!

বিপিএ এর মেম্বারে এককালীন ৫ হাজার টাকা দিতে হয়। এখন আবার ২ হাজার টাকা দিয়ে আমাকে ভোটার হতে হবে। এটা কিভাবে সম্ভব, এত টাকা দিয়ে ভোটার!!!! অনেক ভোটারই হাতছাড়া হবে আমি নিশ্চিত। কারন আমার মত অনেক ফিজিওই দিন এনে দিন খায়।

আমি মানি ফিজিওথেরাপির উন্নয়নের জন্য বড় ফান্ড লাগবে। সেটা অনেকভাবে হতে পারে, আর সেটা সবার যৌথভাবে অবদানে সম্ভব। আমরা মাসিক মেম্বার ফ্রি আপাতত বাড়িয়ে দিতে পারি।যাতে কার উপর খুব প্রেশার না পড়ে!!! টাকা ঠিক মত কালেকশনের জোরালো ব্যবস্থা হাতে নেই। এছাড়া আরও অনেক সৎ পথ আছে, যেইভাবে বিপিএ ফান্ড বড় করতে পারে ধীরে ধীরে।

আমি অত্যান্ত সম্মানের সাথে ইলেকশন কমিশনের প্রধান Abdur Rahman স্যার সহ সবার কাছে অনুরোধ করব। যারা বিএসসি ইন ফিজিওথেরাপি পাশ করছে, তাদের সবাইকে আপাতত অটো মেম্বার বা ভোটার করে নেওয়ার জন্য।

প্রতিনিধি নির্বাচনে নমিনেশন ফ্রি নুন্যতম করার জন্য। কারন ওখানে গিয়ে তো আমি তো ব্যবসা করব না, প্রফেশনের উন্নয়নের জন্য কাজ করব। সুতারাং কেন আমি এত টাকা দিয়ে নমিনেশন ফরম কিনব?

নির্বাচনের পর প্রয়োজনে বিপিএ এর ফান্ডের জন্য বড় একটা উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে।আমি বিশ্বাস করি, আমরা সবাইকে বুঝাতে পারলে প্রফেশনের উন্নতির জন্য সবাই টাকা দেবে। কেউ কার্পণ্য করবে না, যার যা সাম্যর্থ আছে। ধন্যবাদ।

ডা সাইফুল ইসলাম, পিটি

[মতামত বিভাগের লেখা  সম্পূর্ণভাবেই লেখকের নিজেস্য মন্তব্য । ]