বিশেষ জনের বিশেষ সাক্ষাৎকার : মাশরাফি বিন মর্তুজা

0
7

”খেলোয়াড়ের ক্যারিয়ার ফিজিওর উপর নির্ভর করে”

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত মাশরাফি বিন মর্তুজা ফিজিওথেরাপি বিষয়ে ফিজিওনিউজ২৪.কম কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন খেলোয়াড়ের ক্যারিয়ার ফিজিওর উপর নির্ভর করে । বিশেষ সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন সৈয়দ শামীম আহসান মারুফ

ফিজিও-নিউজ : আপনার খেলোয়াড় জীবনের দীর্ঘ ১৪ বছরের ক্যারিয়ারের ১০টি অপারেশন সহ অসংখ্যবার ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে মাঠের বাইরে ছিলেন। এই ইনজুরিগুলো থেকে আবার খেলায় পিরতে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা কতটুকু ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করেন ?

মাশরাফি : একজন খেলোয়াড়ের একজন স্পোর্টস ডাক্তার থেকে একজন ফিজিওথেরাপিস্টের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি, কারণ একজন ডাক্তার প্রথমত অপারেশন বা অন্য কোন চিকিৎসা করেন। তারপর একটা পর্যায়ে থাকে যেখানে এক বা দুই সপ্তাহ যেটি মূলত ইনজুরি হিলিং এর টাইম এর পরে খেলোয়াড়টি তার খেলায় ফিরতে চেষ্টা করেন এবং তখন থেকে মূলত ফিজিওথেরাপির সবচে বড় ভূমিকাটি শুরু হয়। এই পর্যায়ে ফিজিওর মনিটোরিংএ থেকে ব্যথা মুক্তভাবে কি করে আবার খেলায় ফেরা যায় এবং ইনজুরি থেকে দূরে থাকা যায় এটাই প্রদান। যেমন আমার অপারেশনের পর টানা ৬ থেকে ৮ মাস ফিজিওর তত্বাবধায়নে থেকে তার নির্দেশ মেনে স্বাভাবিক হতে হয়েছে। সুতারং আমি বিশ্বাস করি এবং এটাই সত্যি একজন খেলোয়াড়ের জীবনে ফিজিওথেরাপির ভূমিকা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ, শুধু তাই নয় একজন খেলোয়াড়ের সম্পূর্ণ ক্যারিয়ার নির্ভর করে একজন ভালো ফিজিওথেরাপিস্টের উপর।

ফিজিও-নিউজ : আমাদের দেশে আগে বিদেশী ফিজিও ছিলেন কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশি ফিজিওরা সেই দায়িত্বটি পালন করছেন। এই ক্ষেত্রে কি কোনও ধরনের পার্থক্য অনুভব করেন।
মাশরাফি : বাংলাদেশী ফিজিওথেরাপিস্টরা আমাদের জন্য গর্ভ এটা বিভিন্ন দিক থেকে আমাদের আরও বেশি সুবিধা প্রদান করেন। বর্তমানে বাংলাদেশের ক্রিকেট একটি ভালো পর্যায়ে রয়েছে এবং সাথে সাথে অন্যান্য খেলাগুলো উন্নতি করছে। এখন প্রতিটি খেলায় প্রতিটি খেলোয়াড়ের ফিজিওথেরাপি চিকিৎসাটি অতি প্রয়োজন। যদি আমাদের দেশী ফিজিওরা এই চিকিৎসা সেবাটি নিয়ে এগিয়ে না আসেন সে ক্ষেত্রে কিন্তু সব সময় সব খেলোয়াড়ের পক্ষে দেশের বাহিরে গিয়ে চিকিৎসা নেয়া সম্ভব হবে না এবং এর ফলে খেলোয়াড়রা এই চিকিৎসাটি থেকে বঞ্চিত হবেন যে তাদের ক্যারিয়ারের প্রভাব ফেলবে তাই আমি বলবো দেশী ফিজিওরা আমাদের জন্য আশীর্বাদ। যেমন ধরুন আমার ক্যারিয়ার যখন শুরু ২০০১ দিকে তখন কিন্তু আমরা তেমন বাঙালি ফিজিও পেতাম না কিন্তু বর্তমানে আমরা দেশী ফিজিও পাচ্ছি তাতে আমাদের ইনজুরি লেবেলটা কমে আসছে এবং আমরা খেলায় যথেষ্ট উন্নতি করছি।

ফিজিও-নিউজ : আমাদের পাঠকদের উদ্দেশে এই চিকিৎসা সেবাটি নিয়ে ও বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবসে আপনার মতামত কি?
মাশরাফি : প্রথমেই বাংলাদেশের সকল ফিজিওথেরাপিস্টকে বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবসের শুভেচ্ছা। আপনাদের অক্লান্ত সেবায়ই একজন খেলোয়াড় তার জীবনের শ্রেষ্ট পর্যায়ে পৌছাতে পারেন এবং একজন খেলোয়াড়ের সম্পর্ক ঠিক তার একজন পরিবারের সদস্যদের মত হয়ে তাকে। আমার বিশ্বাস একদিন এই দেশের ফিজিওরা আরও এগিয়ে যাবে এবং বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ফিজিওদের মধ্যে তাদের নাম ও দেশের নাম উজ্জ্বল করবেন। আর সকলের উদ্দেশ্যে বলবো তারা তাদের প্রয়োজনে যেন সেবাটি গ্রহণ করেন এবং ব্যাথামুক্ত সুন্দর জীবন উপভোগ করেন।