ভাত হৃদরোগও প্রতিরোধ করে আবার রোগাও করে



  • Add Comments
  • Print
  • Add to Favorites

মোটা হয়ে যাওয়ার ভয়ে ভাত খাওয়া ছেড়েছেন! তবে ওজন বাড়ার জন্য যতটা দায়ী করা হয় ততটা খারাপ নয় এই খাবার।

ভাত ওজন বাড়ায় না: বিশ্বের বহু দেশেই ভাত খাওয়া হয় নিয়মিতই। জাপানিদের কথাই ধরুন, তারা প্রতিদিন কমপক্ষে একটি ভাত-প্রধান খাবার খাবেই। আর থালায় ভাতের একটি দানা থেকে যাওয়াকেও তারা বেয়াদবি মনে করেন। তারপরও জাপানিদের মোটা হয়ে যাওয়ার হার সবচাইতে কম। এমনকি ফিলাডেলফিয়ার টেম্পল ইউনিভার্সিটির একজন জাপানি গবেষক ও তার সহকর্মীর গবেষণায় ভাতে এমন একটি উপাদান পাওয়া কথা জানিয়েছে, যা হৃদরোগ প্রতিরোধ করে। জাপানে হৃদরোগে মৃত্যুর হার কম হওয়ার সম্ভবত এটাই কারণ।
গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই): একটি নির্দিষ্ট খাবার রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ কত দ্রুত এবং কী পরিমাণ বৃদ্ধি করে তার মানদণ্ডকে বলা গ্লাইসেমিক ইনডেক্স বা জিআই। ভাতের ‘জিআই’য়ের মাত্রা অনেক বেশি। অর্থাৎ ভাত রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ অতি দ্রুত অনেক বেশি বাড়িয়ে দিতে পারে। তারমানে এই নয় যে খাদ্যাভ্যাস থেকে ভাতকে সরিয়ে ফেলতে হবে। সমাধান হল, ভাতের সঙ্গে খেতে হবে ‘জিআই’য়ের মাত্রা কম এমন খাবার যেমন- রাজমা, ডাল, ডিম, মাংস, ঘি ইত্যাদি। ফলে খাবারের ‘জিআই’য়ের মাত্রায় ভারসাম্য থাকবে। তবে ভাতের সঙ্গে আলু খাওয়া ঠিক নয়। কারণ আলুও ভাতের মতোই উচ্চ ‘জিআই’ মাত্রার খাবার। তবে একটা কথা মনে রাখতে হবে, কোনও কিছুই অতিরিক্ত খাওয়া ঠিক নয়। তাই ভাতও খেতে হবে পরিমাণ মতো।

Tags:

No Comments to “ভাত হৃদরোগও প্রতিরোধ করে আবার রোগাও করে”

Comments are closed.