যে সাত কারণে আপনার 'ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট' করা উচিত নয়

0
11

আধুনিক নারীরা সৌন্দর্যের দিকে আগের তুলনায় অনেক সচেতন। ফলে এখন অনেকেই তাদের দেহের সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য প্রয়োজনে স্তন বড় করে তুলতে চান। আর এজন্য তাদের ভরসা ‘ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট।’ যদিও নানা দৃষ্টিকোণ থেকে এটি কোনো প্রয়োজনীয় বিষয় নয়। এ লেখায় থাকছে ‘ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট’ না করার সাতটি কারণ।
১. পরিচয় একই থাকবে
অনেকেই আবেগগত কারণে নিজের অনুন্নত স্তন নিয়ে অতৃপ্তিতে ভোগেন। কিন্তু আপনার নিজের যা পরিচয়, তা কি স্তন উন্নত করলে কোনোভাবে পরিবর্তিত হবে? এক্ষেত্রে ছোট স্তন কিংবা বড় স্তন যাই হোক না কেন, আপনার পরিচয় এতে কোনোভাবে প্রভাবিত হবে না।
revive new add২. বড় হতে পারে
স্তন সব সময় একই আকারে থাকে না। অল্প বয়সে বহু তরুণীরই ছোট কিংবা অনুন্নত স্তন থাকে। কিন্তু বয়সের সঙ্গে সঙ্গে এর আকার বাড়তে থাকে। তাই অধৈর্য হয়ে স্তন ইমপ্ল্যান্ট করার কোনো কারণ নেই। দেহের ওজন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর আকারও কিছুটা বাড়ে।
৩. সার্জারি ঝুঁকিপূর্ণ
প্রত্যেকটি সার্জারিই ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। এতে আপনার স্বাভাবিক স্তন নষ্ট হতে পারে কিংবা জীবনও হুমকির মুখে পড়তে পারে।
৪. আকার সবকিছু নয়
ছোট স্তন মানে বড় কোনো ক্ষতি নয়। আবার বড় স্তন মানেই ভালো কোনো বিষয় নয়। এটি শুধুই একটি মানসিক বিষয়। শারীরিকভাবে ছোট স্তনের তেমন কোনো ক্ষতি নেই।
৫. সার্জারির নেশা
মানুষের অতৃপ্তির শেষ নেই। আপনার নিশ্চয়ই শুধু স্তন নয় আরও অনেক বিষয় নিয়ে অতৃপ্তি আছে। আর এগুলো নিয়েই বেঁচে থাকতে হয়। আপনি যদি স্তন অপারেশন করেন তারপর নাক, কান, ঠোঁট ইত্যাদি আরও অনেক বিষয় নিয়ে আপনার অতৃপ্তি সামনে আসতে থাকবে।
৬. কার জন্য
একজন নারীকে তার নিজের মতোই চলা উচিত। নিজেকে যেভাবে ভালো লাগে, তাই করা উচিত। এখানে একটি প্রশ্ন চলেই আসে, আপনি কার জন্য স্তন উন্নত করতে চান? যদি তা হয় পুরুষের চোখে নিজেকে আকর্ষণীয় করে তোলা তাহলে তা বাদ দিন। নিজেকে সামান্য আকর্ষণীয় করে তোলার মাঝে তেমন কোনো পার্থক্য হবে না।
৭. আত্মসম্মান
নিজের দেহকে সম্মান করা নিজেকে সম্মান করার মতোই বিষয়। আপনার নিজের স্তনের আকারের ওপর এ সম্মান নির্ভর করে না। তার বদলে আপনার নিজের যোগ্যতার ওপর অনেক বিষয় নির্ভর করে। এখানে দেহ কোনো বিষয়ই নয়।