স্ট্রোক থেকে বাঁচার ৬টি টিপস


  • Add Comments
  • Print
  • Add to Favorites

আপনার স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায় এরকম বেশ কিছু কারণ ধরতে পেরেছেন বিশেষজ্ঞরা। এগুলোর মধ্যে কিছু আপনি নিয়ন্ত্রণ করে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে পারেন, আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনার কিছুই করার নেই। টনিক দিচ্ছে ৬টি টিপস যার সাহায্যে আপনি স্ট্রোক থেকে বাঁচতে পারেন।

যেসব ক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই এর মধ্যে রয়েছে –

• আপনার বয়স, বয়সের সাথে সাথে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়বেই।

• লিঙ্গ, আপনি পুরুষ হলে আপনার ঝুঁকি বেশী।

• পরিবারের কারো যদি আগে স্ট্রোকের ইতিহাস থাকে।

• আপনার আগে যদি একটি মিনি স্ট্রোক বা ট্রানসিয়েন্ট ইশকেমিক অ্যাটাক (টিআইএ) হয়ে থাকে।

স্ট্রোকের যেসব কারণ আপনি কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন –

• উচ্চ রক্তচাপ

• অনিয়মিত পালস

• উচ্চ মাত্রায় কোলেস্টেরল

• ডায়াবেটিস

• ধূমপান

• অনিয়ন্ত্রিত খাওয়াদাওয়া

• ব্যায়াম না করা

• অতিরিক্ত ওজন

• অতিরিক্ত মদ্যপান

স্ট্রোক থেকে বাঁচার ৬টি টিপস

• রক্তচাপ, কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা। এসবের জন্য কোন ওষুধ খেলে তা চালিয়ে যাওয়া, ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া বাদ না দেয়া, নিয়মিত চেক আপে থাকা।

• শারীরিক ভাবে একটিভ থাকা এবং নিয়মিত ব্যায়াম করা।

• স্বাস্থ্যকর খাওয়া দাওয়ার মাধ্যমে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা।

• ধূমপান বন্ধ করা।

• মদ্যপান বন্ধ করা।

• স্ট্রোকের লক্ষণগুলো জেনে রাখা আর এর বিরুদ্ধে লড়তে শেখা।

কিভাবে বুঝবেন যে কারো স্ট্রোক হচ্ছে?

ইংরেজিতে বলা হয় স্ট্রোকের ক্ষেত্রে ভাবুন ফাস্ট বা এফ.এ.এস.টি। ফাস্ট বা এফ.এ.এস.টি পরীক্ষাটি হলো সবচেয়ে সহজে স্ট্রোকের লক্ষণগুলো মনে রাখা আর চিনতে পারার উপায়। ফাস্ট পরীক্ষাটি করতে নীচের প্রশ্নগুলো করুন।

• ফেইস বা মুখ – খেয়াল করে দেখুন, মুখ কি বাঁকা হয়ে গেছে?

• আর্মস বা হাত – তারা কি দুই হাতই উপরের দিকে তুলতে পারছে?

• স্পিচ বা কথা – তার কি কথা জড়িয়ে যাচ্ছে?

• টাইম বা সময় – এই লক্ষণগুলো মিলে গেলে সময় নষ্ট না করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

মনে রাখবেন স্ট্রোক এর ক্ষেত্রে সময় নষ্ট না করলে রোগীর বাঁচার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এমনকি এই লক্ষণগুলো যদি খুব অল্প সময়ের জন্যেও দেখা যায় দ্রুত হাসপাতালে যান। যত দ্রুত এর চিকিৎসা করবেন ততোই রোগীর জন্য ভালো, নাহলে মস্তিষ্কে চাপের কারণে অনেক ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। স্ট্রোকের দ্রুত চিকিৎসা হলে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠা সম্ভব।

No Comments to “স্ট্রোক থেকে বাঁচার ৬টি টিপস”

Comments are closed.