হে টেকনোলজিস্ট জাতি!! আমায় তোমরা কি দিয়েছো?



  • Add Comments
  • Print
  • Add to Favorites

ইমন চৌধুরী :
(২৬/১২/২০১৫)

অনেক দিন পর আবারো একটি বিশেষ মহৎ উদ্দেশ্যে আসছি আমার প্রিয় ক্যাম্পাস ঢাকা আই এইচ টি তে। কতদিন সেই শখের হোস্টেল লাইফটাকে মিস করছি।

আমি চাইলে ডিপ্লোমা পাশের পরও হোস্টেলে আরো কিছুদিন থাকতে পারতাম। কেউ বাধা দিতো না, বরং এখনো অনেক ভাই ব্রাদার আমাকে ফিরে আসতে বলে।
কিন্তু আমার কেন যেন হোস্টেলে বিনা পয়শায় থাকতে নিজের ইগো তে লাগে।
হোস্টেলে পাশ করার পর থাকার নিয়ম নাই। তবু অনেকে নিয়ম ভঙ্গ করে আই এইচ টি, ঢাকার হোস্টেলে থাকছে। যার ফলে নতুন স্টুডেন্টেরা সিট পাচ্ছে না ঠিকমতো। পেলেও তিন জনের সিটে ছয়জন গাদাগাদি করে থাকছে। এর ফলে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত ইনসস্টিটিউট হওয়া সত্বেও এ ক্যাম্পাসের স্বাস্থ্যের বেহাল দশা। ক্যাম্পাস হোস্টেলের পরিবেশ দেখলে মনে হবে যেন মেথর কোয়ার্টার। এছাড়া শিক্ষার্থীরাও স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন নয়। যে যেভাবে পারে চলছে।

এছাড়া মেডিকেল টেকনোলজী জাতিকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলাম। কিন্তু তাদের নিজেদের অবহেলার কারণে আমি তাদের কর্মকান্ড থেকে অনেকটাই সরে এসেছি।
ক্যাম্পাসের রাজনীতি থেকেও অনেকটা অবসর নিয়েছি।
যে রাজনীতি নিজেদের উন্নয়নে কাজ করতে ব্যার্থ সে রাজনীতি আমার দরকার নাই।
মেডিকেল টেকনোলজি নিয়ে অনেক কাজও করেছি। খেয়ে না খেয়ে বিভিন্ন নিউজ কালেকশন ও প্রচারের কাজ করে বেড়িয়েছি।
এছাড়া মেডিকেল টেকনোলজী জাতিকে স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য একটা আলাদা প্ল্যাটফর্ম উপহার দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তাদের হেলাফেলায় সেটা নিয়ে বেশি এগুতে পারিনি। www.mtnewsbd24.wordpress.com নামক একটি আলাদা নিউজ পোর্টাল খুলেছিলাম।
কিন্তু সব কাজ তো একা করা সম্ভব না। ফাইন্যান্স এর অভাবে পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে পারিনি।
তবে পারবো না যে তা নয়। এক সময় হয়তো পারবো। আর এখনো পুরোপুরি ছেড়েও দেই নি। আমি মেডিকেল টেকনোলজীর সাথে ছিলাম, আছি থাকবো। যদিওবা আমার সেক্টরটা একটু আলাদা। আমি ফিজিওথেরাপিস্ট। তবে আমার রক্তে মিশে আছে মেডিকেল টেকনোলিজী। আমি মেডিকেল টেকনোলজী ইনস্টিটিউটে পড়ালেখা করেছি।
তাই ওই প্রতিষ্ঠানের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ।
সুতরাং প্রতিষ্ঠানের জন্য কিছু করে দিয়ে যেতে চাই।
অবশ্য ইতোমধ্যে বেশ কিছু কাজ করেছিলাম। যাতে আমি অনেকাংশে সফল।
অনলাইনে Institute of Health Technology, Dhaka নামে একটি ফেইসবুক পেইজ খুলেছি যেখানে সাড়ে ছয় হাজারের বেশি লাইক মেম্বার আছেন। এবং এটা মেডিকেল টেকনোলজীর জন্য অন্যতম নির্ভরযোগ্য পেইজ।
এছাড়া Bangladesh Medical Technology & Pharmacy Students Association – BMTPSA নামক পেইজটিও প্রতিষ্ঠিত করেছি যা সবার অনেক পরিচিত এবং প্রিয় পেইজ। যেখানে লাইক মেম্বার সাড়া পাঁচ হাজারেরও বেশি।
এছাড়া ঢাকা আই এইচ টি এর ওয়েবসাইট www.ihtdhaka.blogspot.com আমার বানানো পেইজ।

তবে এর চেয়েও আরো ভালো কিছু করতে চাই। আমার অন্যতম একটি ভাল কাজ “অর্পণ ব্লাড ফাউন্ডেশন”। এটি একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যেখানে বিনামূল্যে হাজার হাজার রক্তদাতা রক্তদান করেন।
মেডিকেল সেক্টরে আমার মনে হয় এটাই প্রথম রক্তদতা সংগঠন, যা আই এইচ তি শিক্ষার্থীরাই গড়ে তুলেছে
এক বছর যাবৎ অনলাইনে কাজ হয়েছে। এখন মাঠে নামার পালা।

সর্বোপরি আমি একটা দাবী জানাতে চাই এ জাতির কাছে।
হে মেডিকেল টেকনোলজী জাতি.!!
আমি তোমাদের উপহার দিয়েছি অনেক কিছু।
নিজের চিন্তা না করে তোমাদের জন্য খেটেছি।
কিন্তু তোমরা আমায় কি দিয়েছো?
আমি তো তোমাদের সাথে কোন প্রতারণা করিনি। তোমরা কেন করলে? আজকাল আমাদের পরিচিত অনেক লিডারেরা আমাকে দেখেও না চেনার ভান করে। প্রয়োজনের সময় চিনতো ভালো করে। এখন দরকার নাই। তাই চেনে না..!!
আমার দরকার নাই চেনার। অন্যেরা আমায় মনে রাখলেও চলবে। তবে মজার ব্যাপার হলো যাদের জন্য তেমন কিছু করিনি, তারাই আমায় মনে রেখেছে।
আই এইচ টি তে বিএসসি ইন ফিজিওথেরাপি ভর্তি পরীক্ষা দিতে গিয়ে দেখি। কমপক্ষে দশজনের সাথে পরিচয় হয়েছে যাদের আমি চিনি না, কিন্তু তারা আমাকে চিনে।
তাদের প্রতি আমি অনেক কৃতজ্ঞ।
যদিওবা সময় কম থাকায় তাদের সময় দিতে পারিনি।

কথাগুলো লিখতে গিয়ে চোখে পানি চলে আসলো।
অনেক স্বপ্ন দেখেছি প্রিয় ক্যাম্পাসকে নিয়ে।
আমার হোস্টেল রুমের নাম দিয়েছিলাম স্বপ্নলোক – ৩১০ (Dreamland) আর আমি সেই স্বপ্নলোকের স্বপ্নযাত্রী..!!

আমি এখন যে খুব খারাপ অবস্থানে আছি তা ও নয়। এখন একটা ভালো জব করি। সহপাঠিদের চেয়ে অনেক ভালো অবস্থানে আছি। আমার কর্মস্থল- “ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার, উত্তরা, ঢাকা”।
এখানকার সবাই অনেক ভাল। ভাল মানুষদের সাথে কাজ করার মজা আছে। তাই কস্ট হলেও অনেক দূর থেকে গিয়ে অফিস করি।
মধ্যবাড্ডায় বাসা আমার, সেখান থেকে উত্তরায় যাই প্রতিদিন। অনেক রোগি আমার থেরাপিতে ভালো হয়েছে। পেশাটা অনেক সওয়াবের। অনেক মানুষের দোয়া পাই।
আল্লাহর রহমতে অনেক ভাল আছি। আলহামদুলিল্লাহ।

আমি আই এইচ টি ছেড়েছি। চিরদিনের জন্য নয়। আমি আবার আসবো বারে বারে।
স্বপ্ন দেখতে, স্বপ্ন দেখাতে। কারণ আমিও তো স্বপ্নলোকের স্বপ্নযাত্রী..!!
ধন্যবাদ।

সাখাওয়াত হোসেন চৌধুরী (ইমন)
ডিপ্লোমা ইন ফিজিওথেরাপি
আই এইচ টি, ঢাকা

No Comments to “হে টেকনোলজিস্ট জাতি!! আমায় তোমরা কি দিয়েছো?”

Comments are closed.