নারী উদ্যোক্তা আফসারী ওয়ালিদার গল্প

প্রতিবেদন

‘ফিজিওনিউজ’ পত্রিকা সব সময় উন্নয়ন এবং শিল্পের সাথে যুক্ত কিছু ব্যতিক্রমী মানুষকে তুলে ধরার প্রাণান্তর চেষ্টা করে এবং সেই মানুষগুলোর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার স্বপ্ন ও লড়াই কে সম্মান জানিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করে। আজ তুলে ধরবো তেমনি একজন রন্ধন শিল্পী, ফুড ক্যাটারিং ব্যবসায়ী এবং পর্যটন উদ্যোক্তা আফসারী ওয়ালিদার পথচলার গল্প।

জীবনে যদি ইচ্ছা ও সংকল্প থাকে তাহলে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। আত্মবিশ্বাস ও প্রত্যয়ের কাছে কোন কিছুই বাধা হতে পারে না। তারই বাস্তব উদাহরণ দেখিয়েছেন আফসারী ওয়ালিদা। তার জন্ম ১৯৯২ সালে দিনাজপুরের বিরামপুরে। ছোট বেলা তার বিরামপুরেই কাটে। বাবা সনামধন্য ব্যাবসায়ী মোঃ মোস্তফা হোসেন ও মা নূররেবা মাহমুদ এর ২ সন্তানের মধ্যে তিনিই ছোট। আফসারী ওয়ালিদা ২০০৮ সালে বিরামপুর পাইলট গার্লস হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ২০১০ সালে ঢাকা কমার্স কলেজে থেকে এইচএসসি পাস করেন এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ বিজনেস এন্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে বিবিএ ও এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেছেন। এছাড়াও কর্মজীবনে শুরুতে তিনি গ্রামীণফোনে চাকরি করেন। আফসারী ওয়ালিদা বরাবরই মেধাবী উদ্যমী হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন।

ছোট বেলা থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি নানা রকম সাংস্কৃতিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিলেন। শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন কাজের জন্য তিনি পেয়েছেন অনেক সম্মাননা ও পুরস্কার। সমাজসেবা মূলক ও সাংগঠনিক কাজেও তিনি পিছিয়ে নেই।

সব কিছুর ঊর্ধ্বে তার আরেকটি পরিচয় রয়েছে, আর সেটি হলো তিনি একজন উদ্যোক্তা। তিনি ছোট বেলা থেকেই রান্না করতে খুব ভালোবাসেন। এই ভালো লাগার বিষয়টিকেই তিনি তার পেশায় পরিণত করেছেন। বর্তমানে তিনি কাজ করছেন হোমমেড ফুড এবং কেক বেকিং নিয়ে নিজের প্রতিষ্ঠান “আফসারী’স হোমমেড ফুড” এ। এর পাশাপাশি বেকিং টুলস ও কুকিং ক্লাসেও সময় দিচ্ছেন। আফসারী ওয়ালিদার রান্না শেখার হাতে খড়ি তার মায়ের কাছে। তিনি জানান তার বাবা ও বড় ভাই ভালো রান্না করেন, সুতরাং পরিবারই তার রান্নার প্রতি আগ্রহের অনুপ্রেরণা । এর পর বিভিন্ন সময়ে পত্রিকার রান্নার পাতা থেকে পছন্দের লেখাগুলো কেটে কেটে সংগ্রহ করতেন ও বিভিন্ন টিভিতে রান্নার প্রোগ্রাম দেখার নেশায় মেতে থাকতেন আর এই সব নতুন নতুন রান্না ও রেসিপি তৈরি করার চেষ্টা করতেন। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে বেকিং বিষয়ে NTVQF Level 2 এবং কুকিং বিষয়ে NTVQF Level 1, ইউসেফ বাংলাদেশ থেকে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে সম্পন্ন করেন এরপর ২০১৮ সালে NTVQF Level 4 (অনলি এসেসর পার্ট) ইউসেফ বাংলাদেশ থেকে সম্পন্ন করেন। বর্তমানে আফসারী ওয়ালীদা বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের একজন এসেসর, রন্ধন শিল্পী। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন দেশি-বিদেশি অনলাইন ও অফলাইন কোর্সের মাধ্যমে রান্না শেখার ও শেখানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ছবি: এ.টি.এন ডেজার্ট প্রতিযোগিতা ২০১৭ এর পুরস্কার গ্রহনের মূহুর্ত

তিনি বিভিন্ন রান্নার প্রতিযোগিতা ও অনুষ্টান গুলোতে অংশগ্রহন করেন। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু পুরস্কার গ্রহন করেছেন। আফসারী স্বপ্ন দেখেন একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ রান্নার ইনিস্টিউট প্রতিষ্ঠা করার।

‘ফিজিওনিউজল’ আফসারী ওয়ালীদা এর উত্তরোত্তর মঙ্গল কামনা করে এবং ভবিষ্যতে আফসারী ওয়ালীদার যে কোন কাজের পাশে থাকার প্রাণান্তর চেষ্টা করে তার সোনালী স্বপ্নকে দেশে বিদেশে ছড়িয়ে দিতে সর্বদা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিচ্ছে। আফসারী ওয়ালীদার এই এগিয়ে চলার ও সাফল্যের গল্প অনুপ্রেরণা হয়ে পুষ্পিত পল্লবের মত ছড়িয়ে পড়ুক সহস্র নারীর মাঝে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published.