সমঝোতা স্মারক সই ব্র্যাক ও শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের

নিউজ

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক এবং শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারির মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। চুক্তিটির আওতায় দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হয়ে হাত-পা হারানো মানুষকে দ্রুত চিকিৎসা দিতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বে (পিপিপি) কাজ করবে প্রতিষ্ঠান দুটি। শনিবার (২৭ আগস্ট) এ সমঝোতা চুক্তি সই হয়।

সমঝোতা স্মারকের আওতায় সংস্থা দুটি একজন দরিদ্র মানুষকে ৫০ শতাংশ কম খরচে আন্তর্জাতিক মানের সেবা দিতে সক্ষম হবে। শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি প্রতিষ্ঠানে গত বছর ডিসেম্বর মাসে কৃত্রিম অঙ্গ সংস্থাপন চিকিৎসা কেন্দ্র খোলা হয়। এখন পর্যন্ত ৪৫০ জনের বেশি রোগী এখান থেকে সেবা পেয়েছেন। এ কেন্দ্রটি ব্র্যাক লিম্ব অ্যান্ড ব্রেস সেন্টারের দ্বারা পরিকল্পিত এবং পরিচালিত হচ্ছে।

১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় পরিণত ব্র্যাক স্বাস্থ্য ও পুষ্টিসহ মানুষের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। ব্র্যাক লিম্ব অ্যান্ড ব্রেস সেন্টার (বিএলবিসি) দীর্ঘদিন ধরে অঙ্গহানির শিকার রোগীদের কম খরচে মানসম্পন্ন ও ব্যবহারবান্ধব প্রস্থেটিক্স ও অর্থোটিক্স সেবা, ফিজিওথেরাপি, কাউন্সেলিং এবং পুনর্বাসন পরিষেবা দিয়ে আসছে।

এ অনুষ্ঠানে ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশিদ আলম, শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আবুল কালাম, জাতীয় সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন, ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ এবং সংস্থাটির স্বাস্থ্য পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচির পরিচালক ডা. মোরশেদা চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশিদ আলম বলেন, এমন একটি মহৎ কাজের জন্য আমি ব্র্যাককে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এ লিম্ব অ্যান্ড ব্রেস সেন্টার অনেক মানুষের উপকার করবে। কোনো প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই যেন এ সেন্টার চলতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আমি বাংলাদেশের আটটি মেডিক্যাল কলেজে এ মডেলটা স্থাপন করতে চাই। ব্র্যাককে বলবো আপনারা পরিকল্পনা নিয়ে আসুন আমরা একসঙ্গে কাজ করবো।

আসিফ সালেহ বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ একজন সামাজিক উদ্যোক্তা ছিলেন। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বলে গেছেন নতুন নতুন সামাজিক সমস্যার সমাধানে যদি ব্র্যাক কাজ না করতে পারে তাহলে এর থাকার কোনো দরকার নেই। সে মানসিকতা থেকেই ব্র্যাক সবসময় সামাজিক সমস্যা সমাধানের মডেল তৈরি করে। আজ যে মডেলটা উদ্বোধন করতে যাচ্ছি তার মাধ্যমে সরকারের অবকাঠামো ব্যবহার করে আমরা একটা সার্ভিস দিচ্ছি।

শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারির জাতীয় সমন্বয়কে সামন্ত লাল সেন বলেন, ব্র্যাকের লিম্ব অ্যান্ড ব্রেস সেন্টারটি এখানে চালু করতে পেরে আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। আমরা এখন দ্রুত অনেক মানুষকে চিকিৎসা দিতে পারবো। ব্র্যাকের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারলে আমরা আরও রোগী আনতে পারবো চিকিৎসাসেবা দেওয়ার জন্য।

ডা. মোরশেদা চৌধুরি বলেন আমরা এ প্রাইভেট-পাবলিক অংশীদারত্ব করেছি কারণ আমরা দরিদ্র মানুষের উপকারে আসতে চাই। দ্রুত তাদের সেবা নিতে চাই। আগে আহত ব্যক্তিকে এক জায়গায়, আবার অন্য চিকিৎসার জন্য আরেক জায়গায় নেওয়া হতো। আমরা চেয়েছি সব যেন এক ছাদের নিচেই ব্যবস্থা করা যায়।

ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম বলেন আপনারা জানেন বৈদ্যুতিক শকে আহত হয়ে প্রতি বছর অনেক মানুষ অঙ্গ হারাচ্ছে। আমরা প্রতি বছর ৩০০ থেকে ৩৫০ জন মানুষের অঙ্গ স্থাপনের কাজ করি। ব্র্যাকের প্রস্তাবটা আমাদের কাছে তাই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। গেলো আট মাসে আমরা ৪৫০ জন মানুষকে সেবা দিতে পেরেছি। তাই ব্র্যাককে আন্তরিক ধন্যবাদ।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published.